জীবন দান – শায়েখ আব্দুল্লাহ আল মুনীর – ইসলামীক কবিতা

জীবন দান – শায়েখ আব্দুল্লাহ আল মুনীর

তুমি জিহাদ করে শহীদ হলে

রবের রাহে জীবন দিলে

রুহুটা তোমার দেহটা ছেড়ে

উড়াল দিলো ঝাপটা মেরে

হঠাৎ যেনো আলোর ছটা

ভরায় সারা দিগন্তটা।

সুবাসে তার বিশ্ব মাতে

হুরেরা তাকায় আকাশ হতে।

আসমানী সেই স্বর্গ রাজে

নতুন বিয়ের বাজনা বাজে।

সব শহীদের দলে মিলে

সময় কাটাও সুখের হালে

দুই ডানাতে আকাশে উড়ে

ফেরদাউসে বেড়াও ঘুরে

জান্নাতী সেই ফুল বাগাবে

দৃষ্টি বুলাও দুই নয়নে

সত্যিই কি দুনিয়া থেকে

এলাম আমি স্বপ্ন লোকে!

সব সুখের এ শ্রেষ্ট দেশ

শেষ হলো সব কষ্ট ক্লেষ?

সুন্দরী সব হুরের সাথে

বাসর হবে আজকে রাতে?

মধুর স্বরে গান বলে সে

বধুর বেশে বসবে পাশে?

দুইটি দেহের আলিঙ্গনে

ফুল ফুটবে প্রেম কাননে

হঠাৎ যেনো দেখলে তাকে

আসছে ছুটে আড়াল থেকে।

মুখটা যেনো জ্যোস্না মাখা

দাতগুলোতে মুক্তা আকা

সুন্দর ঐ সোনার মুখে

মুচকি হাসি সদাই মেখে।

রুপ দেখে তার এক পলকে

ঝিলিক খেলে তোমার বুকে।

মুগ্ধ হয়ে প্রেম আবেশে

দাড়াও গিয়ে তারই পাশে

সুন্দরী সেই সোনার মেয়ে

ভীষণ খুশি তোমায় পেয়ে

হাত দুটি তার দেয় বাড়িয়ে

বুকের মাঝে নেয় জড়িয়ে

টানা টানা দুইটি চোখে

জল গড়িয়ে পড়তে থাকে

আজকে কত বছর পরে

আসলে তুমি আমার ঘরে

তোমার শোকে কতই কাদি

শুকায় মোদের চোখের নদী

প্রেম আবেগের বন্যা বয়ে

ভেলার মতো নেয় ভাসিয়ে।

তোমার হাতের আলিঙ্গনে

সুখ আসবে দেহ মনে

এই কামনা বুকে বেধে

সময় কাটে কেদে কেদে।

প্রেমের রোগের রুগী আমি

ওশুধ আমার শুধুই তুমি

তোমার প্রেমে পাগল হয়ে

মনটা সদা থাকতো নুয়ে।

লাজ-শরমের ভয়েই তবু

ফাস করিনি সেসব কভু।

মনের মাঝে সঙ্গপনে

পুড়েছি শুধু প্রেম আগুনে।

প্রেমের জ্বালা বুকে নিয়ে

তোমার দিকে থাকি চেয়ে।

তুমি রবের রাহে রনাঙ্গনে

জিহাদ করো আপন মনে।

জানতে নাকো আমি ঠিকই

তোমার দিকে দিতাম উকি।

হয়তো কখন মৃত্যু এসে

আনবে তোমায় আমার পাশে।

তখন তোমার পাওয়ার আশায়

মনটা আমার অধিক বিষায়

আজকের এই শুভ দিনে

তুমি ছিলে রনাঙ্গনে।

হঠাৎ করে বুলেট এসে

বিধলো তোমার বুকের পাশে।

দেহটা তোমার লুটিয়ে পড়ে

শহীদ হলে রবের তরে।

রুহটা তখন বাতাসে ভেসে

আসলো ফিরে স্বর্গ দেশে।

এটাই তোমার ইচ্ছা ছিল

রবের দয়ায় পূর্ণ হলো।

বন্ধুরা সব তোমার শোকে

দুঃখ করে দুনিয়া থেকে।

কিন্তু ওদের নেইকো খবর

আজকে তোমার হচ্ছে বাসর।

তাবুর মাঝে বন্দি করে

প্রভু আমায় পালন করে।

ঝিনুক মাঝে মুক্তা যেমন

গভীর জলে থাকে গোপন।

সেই সাগর তলের মুক্তা তুলে

দিলেন প্রভু তোমার কোলে।

রবের তরে জীবন দান

ভীষণ বড় এই সম্মান

তুমিই পেলে সেই উপহার

আমিই তোমার পুরষ্কার

দুঃখ শোকের কাহিনী বাদ

মিটিয়ে নেবো মনের সাধ।

ঠোট জোড়া আজ তৃপ্ত হবে

তোমার ঠোটের পরশ পাবে।

হরষের সাধ আসবে মনে

তোমার বুকের আলিঙ্গনে

তখন তারা বেবাক ভুলে

প্রেমেই মাতে দুজন মিলে।

প্রেম আবেগে উদাস হয়ে

ব্যাস্ত থাকে স্বজন নিয়ে।

দুঃখ শোকের জগৎটারে পর্দা ফেলে আড়াল করে।

জিহাদ করে শহীদ হয়ে

ধন্য হলে এসব পেয়ে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.