বাল্যবিয়ে-শায়েখ আব্দুল্লাহ আল মুনীর

বাল্যবিয়ে –শায়েখ আব্দুল্লাহ আল মুনীর

রহিম মিঞা চাকরী করেন

সময় পেলে নামাজ পড়েন।

সন্তান তার দুইখান শুধু

বড়টা মেয়ে নামটা মধু।

পাশের বাড়ির কবির এসে

কথার প্যাচে বলে হেসে।

ভাইটি আমার ব্যবসা করে।

কোটি টাকা কামাই করে।

তোমার মেয়ে তার দোকানে

প্রায় গিয়ে সওদা কেনে।

নিজ চোখে তাকে দেখে।

ভায়ের মনটা গেছে বেকে।

সারা বেলায় এখন দুদু।

মধুর কথাই বলে শুধু।

রহিম মিঞা বলেন হেসে।

প্রেম করেছে দোষটা কিসে?

তোমার ভাই ভাল ছেলে।

সালাম দেয় দেখা হলে।

মাঝে মাঝে হাদীয়া কিনে

পাঠায় দেখি বাড়ির পানে।

অমন ছেলে মেলা ভার।

সুখী হোক জীবন তার।

কবির হোসেন একটু হাসেন

আসল কথায় এবার আসেন।

দুদু এখন ভাবছে মনে

বিয়ে করবে মধুর সনে।

আপনি যদি রাজি থাকেন

শুভ দেখে দিনটা ফেলেন।

কথা শুনে বেজার মনে

রহিম মিঞা বলেন টেনে।

মেয়ে আমার ছোট্ট অতি

লেখা-পড়ায় বড্ড খ্যাতি।

চাকরি পেয়ে করবে কামাই

মনের মতো ধরবে জামাই।

এখন কি তার বিয়েস বয়স!

তোমার ভাইয়ের এমন সাহস!

কবির হোসেন বলেন রেগে,

বিয়ের সময় বয়স লাগে?

এতকালে পেমের ছলে।

সব হয়েছে বয়স ভুলে

তবে কেনো বিয়ের সময়

ব্যস্ত সবাই বয়স গোনায়?

রহিম মিঞা বলেন চটে

তুমি একটা পাগল বটে।

দেশের সকল বড় মাথা

বলছে এখন একই কথা।

বাল্য কালে বিয়ের সাধ

অনেক বড় অপরাধ।

আমরা সবাই জ্ঞানী গুনি

দেশের আইন সঠিক মানি।
কবির হোসেন বলেন চটে

জ্ঞানী-গুনি তারাই বটে!

সবাই এরা আস্ত গাধা

আবল তাবল বকে সদা।

নিষেধ করে বৈধ কাজে

লিপ্ত করে হারাম মাঝে।

মেয়ে যেদিন যাবে ভেগে।

দেখা যাবে কেমন লাগে।

বুঝবে সেদিন আইন মানা

কত বড় কঠিন গোনা।

রহিম থাকে চুপটি করে

কবির ফেরে আপন ঘরে।

সব শুনে দুদু শেষে

অন্য কোথাও বিয়ে বসে।

কদিন পরে খবর রটে

মধু কোথায় গেছে ছুটে।

ছেলে নাকি গাজা টানে

বেকার বসে ঘরের কোনে।

বিয়ের আগেই মধু নাকি

মা হওয়ার নেয় ঝুকি।

রহীম মিঞা লজ্জা পেয়ে

ত্যাজ্য করেন নিজের মেয়ে।

দুঃখ করে বলেন হাই!

আমার ভুলের শেষ নাই।

দুদুর মতো ভাল ছেলে।

ভাগ্যে কি আর দুটো মেলে!

মিথ্যা আশায় বাসা বেধে

দিলাম তাতে বাধ সেধে।

বয়স কমের দোহাই দিয়ে

ভেঙ্গে দিলাম মেয়ের বিয়ে।

সেই মেয়ে পড়লো জালে

বিয়ের আগেই হলো ছেলে।

নিজের বিয়ে নিজে করে

বয়স দিলো প্রমাণ করে।

কেউ করো না এমন ভুল

বড়ই কঠিন ভুলের মাসুল।

আবোল তাবোল আইন দেশে

মানতে গেলে যাবে ফেসে।

আইন বানায় পাগল লোকে

মানবো কেনো চোখে দেখে?

সবাই দেবো বাল্য বিয়ে

সতি রবে মোদের মেয়ে।

বাল্যবিয়ে বাল্যবিয়ে

Leave a Reply

Your email address will not be published.