লাইলাতুল বারায়াত – শায়েখ আব্দুল্লাহ আল মুনীর

লাইলাতুল বারায়াত – শবে বরাত বা লাইতুল নিসফে শাবান – শায়েখ আব্দুল্লাহ আল মুনীর এর লাইলাতুল বারায়াত গ্রন্থ হতে হুবহু সংকলিত হয়েছে। প্রবন্ধটি পড়ুন এবং আপনার বন্ধুদের মাঝে শেয়ার করুন যাতে আপনার বন্ধুরাও বুঝতে বর্তমানে প্রচলিত লাইলাতুল বারায়াতের বিরুদ্ধে রুখে দাড়ানো মানুষ গুলো কত বড় ভুলের মাঝে ডুবে আছে।

আল্লাহ বলেন “হে ঈমানদারগণ! আল্লাহকে যেমন ভয় করা উচিৎ ঠিক তেমনিভাবে ভয় করতে থাক। এবং অবশ্যই মুসলিম না হয়ে মৃত্যুবরণ করো ন ”। (সূরা আলে ইমরান-১০২)

মহান আল্লাহ তায়ালা আরো বলেন, “হে ঈমানদাররা তোমরা সেই আল্লাহকে ভয় করো যিনি তোমাদের সৃষ্টি করেছেন একটি মাত্র প্রাণ হতে তারপর তা হতে তার জোড়া সৃষ্টি করেছেন পরে তাদের থেকে বহু সংখক পুরুষ ও নারী সৃষ্টি করেছেন। তোমরা সেই আল্লাহকে ভয় করো যার মাধ্যমে একে অপরের নিকট প্রার্থণা করে থাকো আর আত্মীয়তার বন্ধন ছিন্ন করাকে ভয় করো নিশ্চয় আল্লাহ তোমাদের উপর নজর রাখছেন”। (সূরা নিসা-১)

আল্লাহ তায়ালা বলেন, “হে ঈমানদাররা তোমরা আল্লাহকে ভয় করো এবং সঠিক কথা বলো। আল্লাহ তোমাদের আমল সংশোধন করবেন এবং তোমাদের পাপসমূহ ক্ষমা করবেন। যে কেউ আল্লাহকে এবং তার রসুলের অনুসরণ করে সে অনেক বড় সফলতা অর্জন করে”। (সূরা আহযাব-৭০-৭১)

শবে বরাত বর্তমান সময়ের বহুল আলোচ্য একটি বিষয়। এক দিকে যেমন এ রাতটিকে আতশবাজী, মোমবাতী, হালুয়া রুটি ইত্যাদি অশোভনীয় কাজের মাধ্যমে উৎযাপন করা হয় অন্য দিকে একশ্রেনীর মানুষ এটাকে গোড়া শুদ্ধই উপড়ে ফেলতে চান। তারা সাধারনভাবে বলেন, শবে বরাত বলে ইসলামে কিছুই নেই শাবান মাসের ১৪ তারিখ দিবাগত রাতের কোনো ফজীলত সহীহ হাদীসে বর্ণিত আছে বলে তারা মনে করেন না। আমরা এবিষয়ে কিছু তথ্য প্রমাণ পেশ করতে চাই। আশা করি এতে সত্য বিষয়টি উৎঘাটিত হবে। ইনশাআল্লাহ।

লাইলাতুল বারায়াত পর্বে শায়েখ আব্দুল্লাহ আল মুনীর যে সমস্ত বিষয়ে আলোচনা করবেন।

(ক) সূরা দুখানের ৩ নং আয়াতের সঠিক ব্যাখ্যা

(খ) হাদীসে নিসফে শা’বানের ফজীলত

(গ) শাবানের রাতের আমল

(ঘ) শাবানের মধ্যরাতে আলেমদের কর্মপন্থা

(ঙ) শাবানের রাতের বিশেষ সলাত

(চ) এ রাতের নিষিদ্ধ কর্ম সমূহ

(ছ) শাবান মাসের অর্ধ রজনীকে শবে বরাত বলা যাবে কিনা

Leave a Reply

Your email address will not be published.