পরকালের পথে যাত্রা পর্ব- ১৭। কেমন হবে জাহান্নাম। অডিও সিরিজ ডাউনলোড করুন

আখিরাতের বিষয় নিয়ে এত কথা বলার কি আছে?
যদি আমাদের কখনো এমন মনে হয় তাহলে বুঝতে হবে, আমরা আসলে সঠিক ভাবে ইসলামের দিকে অগ্রসর হচ্ছি না।

আপনারা আয়েশার রা. এই কথাটা সম্পর্কে চিন্তা করুন। সাইয়িদা আয়িশা  বলেন,

“যদি কুরআনের প্রথম নাযিলকৃত আয়াত হতো ‘তোমরা মদ পান করো না।’, তাহলে লোকেরা বলত ‘আলাহর কসম, আমরা মদ পান করা বাদ দিব না।’ যদি কুরআনের প্রথম নাযিলকৃত আয়াত হতো ‘তোমরা যেনা করো না।’, তাহলে লোকেরা বলত ‘আলাহর কসম, আমরা যেনা করা বাদ দিব না।’ কিন্তু কুরআনের প্রথম আয়াত ছিল ‘সুরাতুল মুফাসসাল (মাক্কি জীবনের প্রথম দিকের নাজিল হওয়া সূরা সমূহ)’, সেখানে রয়েছে জান্নাত ও জাহান্নামের বর্ণনা। এর ফলে লোকেদের অন্তর আল্লাহর প্রতি অনুগত হয়ে পড়ে, তারপরই হালাল-হারামের আয়াত নাযিল করা হয়।”
আয়েশা রা. বলছেন যদি কুরআনের প্রথম আয়াতগুলো আমাদের করনীয়-বর্জনীয় নিয়ে আলোচনা করতো, যেমন,
এটা করা যাবে না!
ওটা করা যাবে না!
প্রথমেই বিধি নিষেধ !
তাহলে লোকেরা তাঁর অনুসরণ করতো না।

আপনি যদি প্রথম দিনেই মানুষকে বলতে শুরু করেন যে এটা করা যাবে না, ওটা করা যাবে না, মানুষ সেই আহবানে সাড়া দিবে না।

Leave a Reply

Your email address will not be published.