পরকালের পথে যাত্রা পর্ব-১১ ।পুনরুত্থান। অডিও সিরিজ ডাউনলোড করুন

আস-সুর হচ্ছে একটা শিঙ্গা।  আর যিনি এই শিংগাটি ধারণ করে আছেন , তিনি হচ্ছেন ফেরেশতা ইসরাফিল। রাসুলুল্লাহ সা. তাকে দেখেছেন। তিনি তাকে দেখে এসেছেন মিরাজে। এবং তিনি তাকে দেখে এসে যা বলেছেন সেটা হচ্ছে, এরকম,
“সেই ফেরেশতার দৃষ্টি সবসময় আল্লাহ্‌ এর আরশের দিকে স্থির দৃষ্টিতে তাকিয়ে আছে”, কেন?
কারণ, তিনি ভয়ে আছেন, না জানি “কখন সেই সময় চলে আসে, আল্লাহর আদেশ পালনে না আবার দেরি হয়ে যায়, যখন সেই মুহুর্তটি চলে আসবে তখন তিনি আরশের দিকে মুখ ফেরাবারও সময়টুকুও পাবেন না, তাই তিনি সবসময় আরশের দিকে দৃষ্টি নিবদ্ধ করে রেখেছেন বিচার দিবসের আগমনের অপেক্ষায় জন্য। এরপর রাসুল সা. আরও বলেছেন, তার চোখগুলো দেখতে জ্বলজ্বলে দুটা তারার মত। রাসূল সা. দেখলেন যে তাঁর চোখগুলো জ্বলজ্বলে তারার মত স্থির দৃষ্টিতে আল্লাহর আরশের দিকে এক দৃষ্টিতে তাকিয়ে আছে, আল্লাহর আদেশের অপেক্ষায়।
যখন রাসুল সা. এ দৃশ্য দেখলেন, তাঁর নিজের চোখে, তিনি এরপর এই দুনিয়ার থেকে সমস্ত আকর্ষণ হারিয়ে ফেলেন।
তারপর তিনি বলেন, কিভাবে আমি নিজেকে উপভোগ করতে পারি?
কিভাবে আমি এই দুনিয়ায় কোন কিছুতে বিনোদন খুঁজে পেতে পারি?
কিভাবে আমি এই দুনিয়ায় কোন মজা পেতে পারি?
যখন “একজন ফেরেশতা সেই শিঙ্গাটা মুখে নিয়ে বসে আছে, তার কপাল ঝুঁকে আছে সামনের দিকে, দৃষ্টি ফিরে আছে আরশের দিকে, আর কান খুলে সজাগ হয়ে আছে সেই মহা নির্দেশের জন্য, যখন তিনি সেই শিংগায় ফুৎকার দিবেন।
তিনি অলরেডি মুখে শিংগা নিয়ে বসে আছেন, এমনকি তার কপাল সামনের দিকে ঝুঁকে আছে, দৃষ্টি স্থির হয়ে আছে, কান খুলে শুধু সেই মহা আদেশের অপেক্ষায় আছেন কখন সেই মুহুর্তটি আসবে, যখন তাকে শিংগায় ফুৎকারের আদেশ দেয়া হবে, আর তিনি সেই আদেশ পালন করবেন।
রাসুল সা. বলেন,
এরপর কিভাবে আমি এই দুনিয়ার স্বাদ, আনন্দ উপভোগ করবো ?” যখন ফেরেশতা শিঙ্গায় ফুৎকারের অপেক্ষায় বসে আছে?
পরকালের পথে যাত্রা পর্ব-১১
ডাউনলোড করতে এখানে ক্লিক করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.